শীতে ত্বকের যত্নে টিপস

 

শীতে ত্বকের যত্নে টিপস – চলে এসেছে শীতকাল । পরিবেশ বিপর্যয়ই হোক আর যে কারণেই হোক শীত এবার বেশ জাকিয়েই

বসেছে এ কথা বলার আর অপেক্ষা রাখে না । সারা পৃথিবী জুড়েই শীত বিরাজ করছে কিন্ত আমাদের এশিয়া বিশেষত দক্ষিন

এশীয় দেশ গুলোতে যেন শীত এক মহামারী রূপে আভির্ভুত হয়েছে । এপর্যন্ত বাংলাদেশে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে প্রায়

পাচ ডিগ্রি’র মত । আর ইন্ডিয়াতে তা আরো ভয়াবহ । সেঝানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২ ডিগ্রি তাও আবার খোদ

রাজধানী দিল্লীতেই ! বুঝতেই পারছেন শীতের কি ভয়াবহ অবস্থা আমাদের এই দক্ষীন এশিয় অঞ্চলে ।

 

না আজ আমি পরিবেশ বিপর্যয় বা শীতের সাধারণ সব রোগ নিয়ে কথা বলব না । আজ আমি এখানে তুলে ধরব শীতে কিভাবে আপনি ও আপনার ত্বক সুস্থ রাখতে পারেন সে সম্পর্কে । আশা করি এগুলো আপনাদের বেশ কাজে আসবে ।

 

এখানে একটি মজার কথা বলি ড. হুমায়্যূন আহমেদ স্যার তার কোনো একটি লেখায় বলেছিলেন, মেয়েরা ভয়ঙ্কর দূর্যোগের

মাঝেও নিজের সাজ পোষাক ঠিক রাখতে ভুলে না ! তাহলে এমতাবস্থায় কেন নয় এই বিষয়টি ! তাহলে চলুন শুরু করা যাক-

 

এখানে আমরা ঘরোয়া উপায়ে ত্বকের সমস্যা সমাধানে পথ খোজার সাথে সাথে কিছু ভাল ব্র্যান্ডের প্রসাধনীও রিভিউ দিব যেন

আপনারা পছন্দমত প্রোডাক্ট বেছে নিতে পারেন । কারণ ঘরোয়া উপায়ে প্রসাধনী তৈরীর ঝুট ঝামেলা অনেকেই পছন্দ করেন না।

তাই সবটাই আমরা এখানে তুলে আনব । প্রথমে চলুন ঘরোয়া উপায়ে কিছু প্রস্বধনীর ব্যাপারে জেনে নেওয়া যাক-

 

শীতে ত্বকের যত্নে কিছু টিপস

 

অলিভ অয়েল:

অলিভ ওয়েল এমনটি একটি তেল যা অনেক ত্বকীয় সমস্যা ডাক্তার’রা নিজেরাই সাজেস্ট করে থাকেন । এটি ফ্যাটি অ্যাসিড ও অ্যান্টিঅক্সিডান্ট সমৃদ্ধ একটি তেল । যা আপনার ত্বকের ক্ষেত্রে দারুন উপকারি । এটি শুধু আপনার মুখের নয়, পুরো শরীরের ত্বকের জন্যই দারুন উপকারি । গোসলের আধ ঘন্টা আগে এটি মুখসহ পুরো শরীরে ভাল করে মেখে নিন । তারপর গোসল করে ফেলুন দেখবেন ত্বকে বেশ আরামদায়ক অনুভুতি হচ্ছে । আরো বেশি উপকৃত হতে চাইলে গোসলের পর হাতের তালুতে অলিভ অয়েল, ব্রাউন সুগার, আর মধু মিশিয়ে সারা শরীরে ভাল করে মালিশ করে নিন । দেখবেন আপনার ত্বক কখনোই ময়েশ্চারাইজার হারাবে না । এবং আপনি পাবেন সুন্দর এবং মসৃণ ত্বক ।

 

 

অ্যালো ভেরা:

প্রাকৃতিক গুণে ভর্তি আরেকটি উপদান হচ্ছে এই অ্যালো ভেরা । এটি চাষ করা খুবই সহজ এমনকি নিজের প্রয়োজন মেটানোর জন্য আপনি আপনার বাসার ছাদে অথবা ব্যাল্কনিতে টবে করেই এর চাষ করতে পারেন । এতে করে বাড়তি হিসেবে আপনার বাড়ির সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পাবে । যা হোক, ত্বকের পরিচর্যার জন্য একটি অ্যালো ভেরা পাতা সংগ্রহ করে সেটিকে সুন্দর করে কেটে মাঝখানের শাঁসালো অংশ টুকু বের করে নিন । এরপর তা ভাল করে ত্বকে লাগিয়ে কিছুক্ষন বিশ্রাম নিন । এরপর সুন্দর মত ধুয়ে ফেলুন । এতে করে যে আপনার ত্বকের মসৃণতায় রক্ষা পাবে এমন না । এটি আপনার ত্বকের বিভিন্ন জ্বালাপোড়া, চুলকানিও কমে যাবে । এমনকি কিছু কিছু ইফ্রেকশনও ভাল হয়ে যাবে ।

 

নারকেল তেল:

আজ থেকে কয়েকশ বছর আগে যখন আধুনিক বিজ্ঞাণের ছোয়া প্রসাধনী ব্যাপারে তেমন কোনো পদক্ষেপ নেয়নি । তখন মানুষ ত্বক এর যত্নে নির্ভর ছিল কেবলই প্রকৃতির উপর । আর এই প্রকৃতির এক অনন্য অবদান হচ্ছে নারকেল । এই নারকেল থেকে কবে থেকে তেল আহরন শুরু হয়েছে এবং এটি ত্বক সুস্থ করবার ক্ষেত্রে যে এত বড় ভূমিকা রেখে চলেছে তারও কোনো সঠিক হিসেব নেই । তবে এটা আধুনি বিজ্ঞানও স্বীকার করেছে যে নারকেল তেল ত্বক সুস্থ করবার ক্ষেত্রে অদ্বিতিয় ।

নারকেল তেল যদি আপনি আপনার শরিরের পায়ের গোড়ালি,হাটু,কুনুইয়ের নিচে সহ সারা শরীরেই লাগাতে পারেন । এতে করে কয়েকদিনের মাঝেই দেখবেন আপনার ত্বক কেমন মসৃন এবং তেল তেলে হয়ে আছে । এটা প্রায় আমরা সকলেই জানি তাই এ বিষয়ে আর কিছু লিখছি না ।

 

আমন্ড তেল:

আমন্ড তেলে প্রচুর ভিটামিন ই থাকে এবং তা আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় ও ত্বককে করে তোলে মসৃণ ৷ এই তেলের একটি বিশেষ গুণ হচ্ছে, ত্বক খুব সহজেই এই তেল শুষে নেয় এবং চটচটানি অনুভূত হয় না ৷ অ্যালো ভেরা জেলের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা আমন্ড তেল আর মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন ৷ মুখে লাগিয়ে 15-20 মিনিট অপেক্ষা করে সামান্য গরম জলে ধুয়ে ফেলুন ৷ আশা করি এতে খুব ভাল ফল পাবেন ।

 

এবারে আমরা এক নজরে দেখে নিব কিছু ভাল ব্র্যান্ডের প্রসাধনী

বর্তমান সময়ে প্রতিটা ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া থেকে শুরু প্রিন্ট মিডিয়া সব জায়গাতেই প্রসাধনী পন্য সমূহের এত এত চটকদার

বিজ্ঞাপন যে বিশেষজ্ঞরা পর্যন্ত বিভ্রান্ত হয়ে যান । এক্ষেত্রে আমি আপনাদের কিছু বিষইয়ে সচেতন করে দেওয়ার চেষ্টা করব

যেন আপনারা চটকদার বিজ্ঞাপনের ফাদে পড়ে মানহীন কোনো পন্য ব্যবহার না করে ফেলেন ।

 

বিভিন্ন ধরনের লিপ জেল, বডি ময়েশ্চারাইজিং ওয়েল, ফেইস জেল ইত্যাদি ইত্যাদি । শীতের মৌসুমে এসবের ইন্ডাস্ট্রিয়ালরা

রিতীমত ঝাপিয়ে পড়েন ব্যবসা করার জন্য । যেখানে মান নামক বিষয়টি গণ্যই রয়ে যায় ।

 

এ ক্ষেত্রে আপনারা যে দ্রব্যটি কিনবেন প্রথমে দেখে নিবেন সেটি রিল্যাবেল কোনো কোম্পানীর কি না । এরপর সেই পন্যটির

মেয়াদ আছে কি না, এরপর সেই দ্রব্যটি কি কি উপকরণ দিয়ে তৈরী করা হয়েছে কোনো উপকরণ বুঝতে না পারলে সেটি গুগলে

সার্চ করে দেখে নিবেন । মোদ্দা কথা যাচাই না করে কিছু কিনবেন না । এটা বিপদজ্জনক হতে পারে ।

 

এখানে আমি সংগত কারণেই কোনো পন্য তুলে এনে সেই পন্যের বিচার বিশ্লেষণে গেলাম না । কারণ টা আশা করি বুঝতে

পেরেছেন ।

 

উপরে বেশ কিছু বিষয়ে আলোকপাত করা হল । যদি কেউ মনে করেন এখানে আরো কিছু বিষয় যুক্ত করা উচিৎ ছিল তবে

কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে পারেন অথবা অন্য কোনো বিষয় বা টিপস জানতে চাইলেও জানাতে পারেন । ধন্যবাদ ।