পিরিয়ডের সময় যা করলে বিপদ

আপনি হয়ত কোনো ঔষধের দোকানে দাঁড়িয়ে আছে, কোনো ঔষধের দোকানে এমন সময় একটি মেয়ে আসল এবং স্যানিটারি ন্যাপকিন চাইল । আর আপনি তার দিকে অবাক চোখে তাকিয়ে আছেন ! হয়ত এমনটি অনেকেই করেছেন । শুধু যুবক কেন অনেক প্রাপ্ত বয়স্ক, এমনকি বৃদ্ধরাও এটি করে থাকেন । ভাব খানা এমন যেন স্যানিটারি ন্যাপকিন জিনিসটি অত্যধিক অস্বাভাবিক কোনো বস্তু । আসলেই কি তাই ?

পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব নারীদের জন্য খুবই স্বাভাবিক একটি প্রাকৃতিক ঘটনা । যা প্রতি মাসেই একবার হয়ে থাকে । আর এটি হয় বলেই কোনো মেয়ে বা নারী মা হতে পারেন । সুতরাং বুঝতেই পারছেন বিষয়টি কতটা গুরুত্বপূর্ণ । তাই দয়া করে এটিকে স্বভাবিক দৃষ্টিতে দেখবেন আশা করি ।

যা হোক, পিরিয়ড এর সময় একটি নারী দেহ থেকে অনেক অপ্রয়োজনীয় পদার্থ বেড়িয়ে যায় এবং জড়ায়ু সহ সারা শরীর অনেক রোগ বালাই এর হাত থেকে মুক্তি পায় । কিন্তু এই সময়ে একজন নারীকে অনেক গুলো বিষয় থেকে নিজেকে বিরত রাখতে হয় । যা খুবই জরুরী । না হলে শরীরের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে । আর বিষয়গুলো অনেকেই জানেন না, বা ভুলবশত করে ফেলেন । তাই আজ আপনাদের সচেতন করবার জন্য পিরিয়ডের সময় যা করলে বিপদ হতে পারে সেগুলো সম্পর্কে কিছু ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করব । আশা করি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন ।

 

পিরিয়ডের সময় যা যা করলে বিপদ হতে পারে

 

অসুরক্ষিত যৌনকার্য্য

অনেকেই মনে করেন ঋতুস্রাবের সময় যৌনমিলন করলে গর্ভধারণ হয় না । এটা ভুল ধারনা । বিশেষজ্ঞরা বলেন, এই সময়েও গর্ভধারণ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে । তবে এই বিষয়টি ছাড়াও এ সময় যৌনমিলন করা ঠিক নয় । কারণ, এ সময় যৌনমিলন করলে  আপনার শরীর থেকে আপনার সঙ্গীর শরীরে রোগজীবাণুর সংক্রমণ হতে পারে । তাই এই সময়ে যৌনমিলন এড়িয়ে চলুন ।

 

খাবার সময় মত না খাওয়া

ঋতুস্রাবের সময় শারীরিক অস্বস্তির কারণে অনেকে খাবার খেতে চান না বা খাবার খেতে অনীহা প্রকাশ করেন । তবে এই সময় কোনো ভাবেই খাবার খাওয়া বাদ দেওয়া ঠিক না । মনে রাখবেন, এ সময়ে আপনার শরীর থেকে অনেক রক্ত ঝরে যায় যা আপনাকে দুর্বল করে দিতে পারে । আর খাবার আপনাকে কর্মক্ষম রাখতে সাহায্য করবে । তাই অবশ্যই খাবার খাবেন এবং পুষ্টিকর খাবার খাবেন ।

 

কায়িক পরিশ্রম করা

আমাদের বেশির ভাগ পরিবারেই পরিবারের সকল কাজ কর্ম ঐ পরিবারের প্রধান নারীর উপর ন্যাস্ত থাকে । তাই দেখা যায় পিরিয়ডের সময়েও তাদের সমান তালে কাজ করে যেতে হয় । এমনিতে সমস্যা নাই কিন্তু ঋতুস্রাবের সময় যদি পেট অথবা কোমরে ব্যথা থাকে তবে কোনো ধরনের শারীরিক পরিশ্রম না করাই ঠিক হবে । এতে ব্যথা আরো বেড়ে যেতে পারে এবং শারীরিক জটিলতা তৈরি হতে পারে ।

 

স্যানিটারি ন্যাপকিন পরিবর্তন না করা

 

অনেককেই দেখা যায় ঋতুস্রাবের সময় স্যানিটারি ন্যাপকিন পরিবর্তন কম করেন । এ থেকে সংক্রমণ হতে পারে এবং ভ্যাজাইনায় দুর্গন্ধ তৈরি হয় । তাই বিশেষজ্ঞরা বলেন, প্রতি তিন ঘণ্টা পরপর স্যানিটারি ন্যাপকিন বা প্যাড পরিবর্তন করা জরুরি।

.

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা এ সময়টায় জরুরি । নয়তো সংক্রমণ হতে পারে । তবে অনেক নারী রয়েছেন, যাঁরা এ সময়টায় অতিরিক্ত পরিষ্কার থাকতে পছন্দ করেন । বিশেষজ্ঞরা বলেন, ভ্যাজাইনার অংশ পরিষ্কার রাখুন তবে অতিরিক্ত নয় । কেননা সেই অঙ্গে শরীরের জন্য উপকারী ব্যাকটেরিয়াগুলো থাকার প্রয়োজন রয়েছে । তাই পরিষ্কার থাকুন তবে বাড়াবারি করবেন না ।

 

সব শেষে দুটি কথা

একজন নারীকে স্রষ্টা এমন কিছু ক্ষমতা বা সক্ষমতা দিয়েছেন যা তাদেরকে করেছে অনন্যা এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুরুষের চেয়েও অধিক মূল্যবান । আর এমন মূল্যবান হতে গেলে তাকে একটু বাড়তি কষ্ট সহ্য করতেই হবে । আর আমাদের পুরুষদের সে বিষয়টিকে সহজ ভাবে নিতে শিখতে হবে এবং সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে ।

সাথে থাকার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ ।