সকালের নাস্তায় কিছু স্বাস্থ্যকর খাবার

 

স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল । স্বাস্থ্য ভাল তো সবই ভাল, তখন আপনি যা করবেন আপনি তাতেই আনন্দ পাবেন । আর শরীর যদি কোনো কারণে ভাল না থাকে তাহলে সব কিছুই তখন খারাপ লাগে । কোনো কাজেই উৎসাহ পাওয়া যায় না । আর শরীর-স্বাস্থ্য ভাল রাখবার জন্য যে ক’টি উপাদান উল্লেখযোগ্য তার মাঝে খাদ্য প্রধান । সুষম খাবার আপনার শরীর ভাল রাখতে সব চেয়ে বেশি সাহায্য করে থাকে । তাই আমরা এ পর্যায়ে পুরো গাইড লাইন দিব কিভাবে আপনি আপনার স্বাস্থ্য ভাল রাখতে পারেন । তবে এটি কোনো একক বিষয় নয় যে একটি মাত্র পোস্টেই তা তুলে ধরা যাবে । তাই আমরা এটি কে বেশ কয়েকটি ভাগে পর্ব আকারে পোস্ট করব । তাই আজ লিখছি সকালের নাস্তায় কিছু স্বাস্থ্যকর খাবার সম্পর্কে ।

Best Healthy Food Reviews-সকালের নাস্তা/পর্ব-১

২য় পর্ব পেতে এখানে ক্লিক_করুন

সকালের নাস্তায় কিছু স্বাস্থ্যকর খাবার-সকালের নাস্তা আমাদের শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি সারা দিন আমাদেরকে প্রাণবন্ত ও সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, সকালের নাস্তা বেশি পরিমাণে ক্যালরি পোড়াতে সাহায্য করে এবং সারাদিন ধরে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে । তবে এখানে একটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে খাবার হতে হবে সুষম, অর্থাৎ ভারী খাবার না খাওয়া । তার পরিবর্তে স্বাস্থ্য সম্মত পুষ্টিকর খাবার গুলোকে আমাদের বাছাই করে নিতে হবে । এবং সে অনুযায়ী আমাদের খাবার মেনু ঠিক করে নিতে হবে । যেগুলো আমাদের সারাদিন কর্মচঞ্চল রাখবে । তো চলুন আজ জেনে নেই সেরকম কিছু খাবার সম্পর্কে –

 

সকালের নাস্তায় যা যা খেতে পারেন

 

১. আটার রুটি

সকালের নাস্তার জন্য বেশ ভালো একটি খাবার হচ্ছে আটার রুটি । সকালে পাউরুটি বা ভাত খাবার চাইতে আটার রুটি সবজি ভাজি বা ডিম অথবা ঝোলের তরকারি কিংবা কলা দিয়ে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ভালো । যাদের ডায়াবেটিস এর সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য এটি বিশেষ উপাদেয় । এটি ভাতের পরিবর্তে খাওয়া হলেও এতে সুগার বাড়ার ঝুকি থাকে না । এছাড়া রুটি বেশ ভালো এনার্জি সরবরাহ করে আমাদের দেহে যা পুরো দিনই রাখবে সতেজ ।  তবে অবশ্যই তেলে ভাজা পরটা থেকে দূরে উত্তম ।

 

২. ডিম

ডিমকে বলা হয় ‘সুপারফুড’ । ডিমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনারেলস । প্রোটিনের সব চাইতে ভালো উৎস হচ্ছে ডিম । এতে ক্যালোরিও থাকে বেশ কম । সকালের নাস্তায় অবশ্যই প্রত্যেকের ডিম খাওয়া উচিৎ । একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষ হিসেবে সকালে ২ টি ডিম খেলেই যথেষ্ট । তবে যারা একটু বেশি স্বাস্থ্যবান এবং যাদের রক্তচাপ জনীত সমস্যা রয়েছে তাদের ডিমের কুসুম এড়িয়ে যাওয়া উচিৎ। সকালে ডিম সেদ্ধ বা ডিমের অমলেট দিয়ে নাস্তা সারতে পারেন ।

 

৩. খিচুড়ি

অনেকেরই সকালে ভাত খাওয়ার অভ্যাস । এটা বিশেষত আমাদের বাঙ্গালীদের ক্ষেত্রে অনেকটা বিকল্পহীন বলা যায় । এক্ষেত্রে তারা ভাতের বদলে সকালের নাস্তায় রাখতে পারেন খিচুড়ি । তবে এক্ষেত্রে সবজি খিচুড়ি বিশেষ উপাদেয় । চালের পরিমাণ কমিয়ে বেশি পরিমাণে সবজি দিয়ে রান্না করা সবজি খিচুড়ি দিয়ে সেরে নিতে পারেন সকালের নাস্তা । এতে করে ভারী নাস্তা করা হলেও দেহে পৌঁছাবে পর্যাপ্ত পুষ্টি ।

 

৪. ওটস

ওটস জিনিসটা আমাদের অনেকের কাছেই খেতে তেমন একটা ভাল লাগে না তবে এটি আমাদের দেহের জন্য অনেক ভালো একটি খাবার । এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার । ওজন কমাতে এবং কলেস্টোরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে ওটসের জুড়ি নেই । সকালে হাবিজাবি খাবার বাদ দিয়ে একবাটি ওটস রাখুন । তবে চিনিযুক্ত ওটমিল থেকে সাবধান থাকা ভাল । চিনির পরিবর্তে মধু এবং সাথে কিছু ফলমূল যোগ করে নিতে পারেন । ওটস খিচুড়িতেও নাস্তা হিসেবে চমৎকার ।

 

৫. দই

দিনের শুরুটা দই দিয়ে শুরু হোক অনেকেই তা চান না । কিন্তু দই দেহের জন্য অনেক বেশি কার্যকরী একটি খাবার । এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম যা হাড়ের গঠনে কাজ করে । দিনের শুরু দই দিয়ে করলে পুরো দিন আপনার দেহে থাকবে অফুরন্ত এনার্জি । ক্লান্তি স্পর্শ করবে না দিনের শেষেও । সুতরাং সকালের নাস্তায় কিছু ফলমূলের পাশাপাশি রাখুন দই । তবে যাদের ডায়াবেটিস এর সমস্যা রয়েছে তারা এড়িয়ে চলতে পারেন ।

 

৬. ফল

সকালের নাস্তার জন্য সব চাইতে ভালো খাবার হচ্ছে ফলমূল । কলা, আপেল, কমলা, আঙুর ইত্যাদি ধরণের ফলমূল অথবা মৌসুমি ফলমূল দিয়ে সকালের নাস্তা করা সব চাইতে ভালো । ২টি কলা, ১টি আপেল, ১টি কমলা, ২/৩টি স্ট্রবেরি এভাবে শুধুমাত্র ফল দিয়ে নাস্তা করা সকালের জন্য ভালো । চাইলে ফলমূল দিয়ে সালাদের মত তৈরি করেও খেতে পারেন । আপনি হয়ত জেনে অবাক হবেন জাপানিরা দিনের প্রত্যেকে খাবারের শেষেই কিছু না কিছু ফল খেয়ে থাকে । এটি তাদের দীর্ঘায়ু করতে অনেক বেশি কাজে দেয় ।

 

৭. সালাদ

সালাদ মানেই যে শসা, টমেটো এবং গাজরের হতে হবে এমনটা মনে করার কোনো কারণ নেই । সুস্বাস্থ্যের জন্য এই সকল সবজির সাথে সালাদে ব্যবহার করতে পারেন সেদ্ধ ডিম বা সেদ্ধ মাংস অথবা সেদ্ধ ছোলাবুট । এছাড়া খেতে পারেন ফলমূলের সালাদ । এইসব ধরণের সালাদ স্বাস্থ্যের জন্য ভালো এবং দিনের শুরুটা চমৎকার করতে বেশ কার্যকরী ।

 

সব শেষে দুটি কথা

মোদ্দা কথা আপনি আপনার সকালের নাস্তায় কোয়ান্টিটি’র পরিবর্তে কোয়ালিটির দিকে নজর দিন । কারণ সকালের নাস্তা যদি

পরিপূর্ণ এবং সুষম হয় তাহলে সারাদিন আপনি ক্লান্তিহীন থাকবেন এবং আপনার কাজ কর্মে মনোনিবেশ করতে পারবেন । সকালে ভারী

খাবার এড়িয়ে হাল্কা খাবার গ্রহন করুন কিন্তু সেগুলো যেন হয় যথাযথ পুষ্টি সম্পন্ন ।

সাথে থাকার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ ।